শনিবার, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
- বিজ্ঞাপন -
হোম কৃষি পান চাষে স্বাবলম্বী কুড়িগ্রামের পান্ডুলের ৩শ চাষি

পান চাষে স্বাবলম্বী কুড়িগ্রামের পান্ডুলের ৩শ চাষি

একটি পানের বরজ থাকলেই সারা বছরের বাজার খরচ নিয়ে আর চিন্তা থাকেনা। উৎপাদন খরচ কম, লাভ বেশি। তাই   বছরের পর বছর বংশ পরম্পরায় পান চাষ করেন কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার পান্ডুল ইউনিয়নের মানুষ। শুধু এ ইউনিয়নেই প্রায় ৩শ পান চািষ  ৩ শতাধিক বরজে পান চাষ করে স্বাবলম্বী  হয়েছেন। এ সাফল্য দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে আশেপাশের এলাকাতেও ছড়িয়ে পড়ছে পান চাষ।
সরেজমিন দেখা গেছে, পান্ডুল ইউনিয়নের সাতঘড়িপাড়া, আপুয়ারখাতা, খামার, মহিষমুড়ি, কাগজীপাড়া, ঝাড়ভাঙা, পান্ডুলসহ অনেক গ্রামে কৃষকরা গড়ে তুলেছেন পানবরজ। আবাদি জমি কিছুটা উঁচু করে পান গাছ রোপণ করেছেন। চারার উপর বাঁশ ও খড়ের মাচা তৈরি করেছেন।
আপুয়ারখাতা খামার গ্রামের পানচাষি  নুর ইসলাম জানান, তিনি ৪০ শতক জমিতে পান চাষ করেছেন। এ জমিতে ২৫ বছর আগেই এ বরজ তৈরি করেন তার বাবা। যাদের পান বরজ থাকে তাদেরকে বলা হয় বারাই। তার বাবা শামসুল বারাই, দাদা শরফুদ্দিন বারাইসহ পূর্ব পুরুষদের নামের সঙ্গে বরাই শব্দটি যুক্ত থাকায় এ এলাকায় বহু বছর ধরে পান চাষের প্রমাণ মেলে। এমনকি পান এবং হাটে পান বিক্রির ডুল (ডালি) থেকে এ এলাকার নামকরণ পান্ডুল হয়েছে বলে জানান তিনি। এ জমিতে তিনি বছরে ৫০ হাজার টাকা খরচ করে দেড় লাখ টাকারও বেশি পান বিক্রি করেন বলে জানান তিনি। তার ভাই নুর হাদীর বরজ রয়েছে ১৩ শতক জমিতে।  তিনি জানান, রংপুর অঞ্চলে পান সুপারির চাহিদা বেশি। দক্ষিণাঞ্চল থেকে মুলত পানের সরবারহ আসলেও স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পান দিয়ে অনেক চাহিদা পূরণ হচ্ছে। বিশেষ করে পান্ডুলের পান স্থানীয় জাতের, তাতে খৈল ব্যবহার করা হয় এবং রাসায়নিক সার ব্যবহার হয় সীমিত। তাই এ পান বেশি সুস্বাদু বলে জানান তিনি।
সাতঘড়ি পাড়ার পানচাষি এরশাদুল হক জানান, পান চাষে ঝক্কি ঝামেলা কম। বাঁশ, খড়, মাটি, খৈল ও গোরব ব্যবহার করা হয় বরজ তৈরিতে । সামান্য রাসায়নিক সার ব্যবহার করা হয়। রোগ ব্যাধি দেখা দিলে খুব সীমিত পরিমাণ কীটনাশক ব্যবহার করা হয় মাঝেমধ্যে।
পানচাষিরা  জানান, পান বিক্রির জন্য কোথাও যেতে হয়না। স্থানীয় পান্ডুল বাজারে সপ্তাহে দুদিন খুব ভোরে পানের বাজার বসে। ৮০টি পান ৮০-১৩০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকার পাইকাররা এসে কিনে নিয়ে যান। তাই বাজারজাত নিয়ে কোন সমস্যা নেই।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক বিপ্লব কুমার মোহন্ত জানান, জেলায় মোট ২৮ হেক্টর জমিতে ৩৯৫টি বরজ তৈরি করা হয়েছে। বছরে পানের উৎপাদন হয় ২০৫ মেট্রিক টন। এছাড়া পানের বরজের সংখ্যা বৃদ্ধি ছাড়াও সুপারি গাছে পান ও চুঁই ঝাল চাষের জন্য চাষিদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- বিজ্ঞাপন -

Most Popular

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গ্রামীণ কৃষি সম্পাদকের ঈদের শুভেচ্ছা

গ্রামীণ কৃষি ডেস্কঃ পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশের মুসলিম উম্মাহ, সুশীল সমাজ ও দেশ-বিদেশে অবস্থানরত সকল প্রবাসীদেরকে ঈদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন...

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির ঈদের শুভেচ্ছা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানালেন বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বাংলাদেশ কৃষক লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা এবং সম্মিলিত...

রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে অটিজম শিকার ব্যক্তিদেরও সম্পৃক্ত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ। রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে সকলের সঙ্গে অটিজম ও প্রতিবন্ধিতার শিকার...

উপজাতীয় শরণার্থী টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান সুদত্ত চাকমার বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন

সুদত্ত চাকমা উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব পদমর্যাদা) নিযুক্ত লাভ করায় রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর...

Recent Comments